৩১ মার্চ ১৯৭১ : চট্টগ্রামে প্রথম গণহত্যা

১৯৭১-এর এই দিনে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সদস্যরা মাত্র কয়েক ঘণ্টায় কুড়াল, কিরিচ আর রামদা দিয়ে কুপিয়ে ৪০ জন ইস্ট পাকিস্তান রাইফেল (ইপিআর) সদস্য এবং ৩৯ নাথপাড়াবাসীসহ ৭৯ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে। হালিশহরের মধ্যম নাথপাড়ায় পাক বাহিনীর সহযোগিতায় স্থানীয় বিহারিরা এ হত্যাযজ্ঞ চালায়।

নাথপাড়ার শহীদ অনিল বিহারী নাথ, দুলাল নাথ ও বাদলের নাথের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে সরকারি বার্তা সংস্থা বাসস এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ২৫ মার্চ হালিশহর ইপিআর ঘাঁটি থেকে মেজর রফিকের নেতৃত্বাধীন ইপিআর বাহিনী পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। এ সময় দক্ষিণ হালিশহরের লোকজন নানাভাবে ইপিআর বাহিনীর সদস্যদের সহযোগিতা করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে পাক বাহিনী।

খবর পেয়ে ২৯ মার্চ পাকিস্তানি সেনাবাহিনী বঙ্গোপসাগর উপকূল হয়ে দক্ষিণ কাট্টলীর ইপিআর ক্যাম্পের দিকে অগ্রসর হয়। পরদিন পাক বাহিনী নগরীর উত্তরে গহনা খাল এবং দক্ষিণে ইপিআর ক্যাম্প সংলগ্ন এলাকা ঘিরে ফেলে।

সামান্য অস্ত্র নিয়ে ইপিআরের পক্ষে পাক বাহিনীকে মোকাবেলা করা সম্ভব ছিল না। এ অবস্থায় অধিকাংশ ইপিআর সদস্য এলাকা ত্যাগ করলেও ৩৫ থেকে ৪০ জন মধ্যম নাথপাড়ার বিভিন্ন বাড়িতে আশ্রয় নেয়।

বিহারিরা জল্লাাদ শওকতের নেতৃত্বে ৩১ মার্চ দুপুরের দিকে নাথপাড়ায় হত্যাকাণ্ড শুরু করে। বেছে বেছে তরুণ-যুবকদের হত্যা করা হয়। বাড়িঘরে আগুন ধরিয়ে দেয় তারা। নারী ও শিশুদের আটকে রাখা হয় এক বিহারির ঘরে। পরে সেখান থেকে মেয়েদের ধরে নিয়ে পাশবিক নির্যাতন চালানো হয়।
ওইদিন বিহারিরা নাথ পাড়ার চট্টগ্রাম কমার্স কলেজের বিকম শ্রেণির ছাত্র দুলাল এবং চট্টগ্রাম কলেজের অনার্সের ছাত্র বাদল-এ দুই ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করে। চোখের সামনে এই দৃশ্য দেখে মা নিরুবালা অজ্ঞান হয়ে যান। পরে দুই ছেলের রক্ত দিয়ে ভিজিয়ে দেয়া হয় নিরুবালার শরীর। একই সময়ে হত্যা করা হয় নিরুবালার স্বামী হরিপদ নাথ ও শ্বশুর খীরোদ বাঁশী নাথকেও।

সেদিনের দুঃসহ ঘটনার স্বাক্ষী দুলাল ও বাদলের ছোট বোন খুকী দেবী বাসসকে বলেন, ‘সেদিন সকালে ১০ থেকে ১২ জন ইপিআর সদস্য আমাদের ঘরে আশ্রয় নেয় এবং কিছু সাধারণ কাপড়-চোপড় চায়। আমার বাবা ও ভাইয়েরা তাদের কাপড় ও খাবার দেয়। খাওয়া শেষ করে ইপিআররা চলে যান। দুপুরের দিকে একদল বিহারি কিরিচ, কুড়াল নিয়ে আমাদের বাড়ি আক্রমণ করে এবং ইপিআর জাওয়ানদের বের করে দিতে বলে। এরপর বিহারিরা ঘরে ঢুকে চোখের সামনে আমার বড় দুই ভাইকে কুড়াল ও কিরিচ দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। সে দৃশ্য দেখে আমার মা অজ্ঞান হয়ে পড়েন। পরে তারা আমার বাবা ও দাদুকেও হত্যা করে। বিহারিরা কুড়াল দিয়ে বড় ভাই দুলালকে হত্যা করলে আমি বাদলকে জড়িয়ে ধরে খাটের নিচে লুকিয়ে থাকি। কিন্তু সেখান থেকে বাদলকে টেনে এনে হত্যা করা হয়। এরপর মাটি থেকে ওদের রক্তমাখা শরীর উপরে তুলে আমার অজ্ঞান হয়ে পড়ে থাকা মায়ের শরীরের ওপর ধরে বলে ‘গোসল কর ছেলেদের রক্ত দিয়ে। তোদের জয় বাংলা বেরিয়ে যাবে। এ সময় আমার মায়ের পুরো শরীর আমার ভাইদের রক্তে ভিজে যায়।’

খুকী দেবী তখন অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। হত্যাকাণ্ডের পর বিহারিরা ঘরে আগুন লাগিয়ে দিলে খুকীর বাঁ হাত ও পা ঝলসে যায়। কোন রকমে দৌঁড়ে পাশের এক ছোট্ট ডোবায় ঝাঁপিয়ে পড়ে আত্মরক্ষা করেন তিনি। সেই ভয়ঙ্কর স্মৃতি আর দগ্ধ শরীর নিয়ে আজও অবিবাহিত জীবনযাপন করছেন খুকী দেবী। হাতের সে পোড়া অংশ দেখাতে গিয়ে ডুকরে কেঁদে উঠেন তিনি।

পাড়ায় আগুন দেওয়ার পর অন্য নারী-পুরুষরা পাড়া ছেড়ে চলে যাওয়ায় এসব মৃতদেহের পরিণতি কী হয়েছিল তা জানা যায় নি। তবে স্বাধীনতার পর পাড়ায় ফিরে বহু মানুষের মাথার খুলি এবং হাড়গোড় পাওয়া যায়। মাটি খুঁড়েও অনেক কঙ্কাল পাওয়া গেছে।

এখন পুরো এলাকায় ঘরবাড়ি তৈরি হয়েছে। আর এভাবেই ইট কাঠ পাথরের নিচে চাপা পড়ে গেছে সব স্মৃতি।

নাথপাড়ার এ নির্মম হত্যাযজ্ঞ স্মরণ করে রাখতে কয়েক বছর আগে মুক্তিযুদ্ধের গবেষক ডা. মাহফুজুর রহমান, বিশিষ্ট সাংবাদিক নাসিরুদ্দিন চৌধুরী, নাট্যকার প্রদীপ দেওয়ানজী, কলামিস্ট সাখাওয়াত হোসেন মজনু ও চিত্রশিল্পী ঢালী আল মামুনের উদ্যোগে ওই স্থানে একটি স্মৃতি ভাস্কর্য ‘শহীদ বেদী’ স্থাপন করা হয়।

Write A Comment

error: Content is protected !!