বাসায় ঢুকেই বাড়িওয়ালীর দিকে তাকিয়ে বললাম, আপনার বাসায় মেয়ে মানুষ আনা যাবে তো?
তিনি বড় বড় চোখ করে বললেন – না মানে রাতেও থাকবে নাকি??
– থাকতেও পারে।
বলেই আমি হেসে ফেললাম। বাড়িওয়ালী পড়লেন মহা চিন্তায়। এই পোলা বলে কী?? বাড়িওয়ালা পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন। একটু আলাভোলা টাইপের। শরিফ আদমি। মানে দেখলে মায়া জন্মে টাইপ ফেস। তিনি বললেন- সমস্যা নাই। আপনি ফ্ল্যাট বাসা নিচ্ছেন, আপনার বাসায় আপনার পছন্দের মানুষ তো আসতেই পারে। আশপাশের কেউ কিছু বললে আমারে বইলেন, আমি দেখবো। সমস্যা নেই কোন।

আমি বললাম- দেখেন, আমার অভিজ্ঞতা থেকে জানি যে, মেয়ের সাথে আমার সম্পর্ক যা’ই হোকনা কেন, ব্যাচেলর বাসায় মেয়ে মানুষ এসেছে মানেই মানুষ আগডুম বাগডুম ভেবে নেয়। সুতরাং ক্লিয়ার কার্ট আলাপ।

যাই হোক, মজার ঘটনা হল, আমার গত কয়েকদিনের বাসা ভাড়া সংশ্লিষ্ট পোস্ট বিশ্লেষণ করে অনেকেই এটা নিশ্চিত হয়েছে যে, আমার চরিত্র, মোটিভ এবং পার্সোনালিটি ভয়ংকর লেভেলের খারাপ। 🙂 তাদের চিন্তার প্রতি কোন অভিযোগ নেই।
কিন্তু আমার যে শুভাকাঙ্ক্ষীরা বিষয়টা নিয়ে কিঞ্চিৎ ধোঁয়াশার মাঝে আছেন, তাদের জন্য দুকথা বলার আছে। আদতে বাসায় মেয়ে বন্ধু আনা না আনা নিয়ে যে আদিখ্যেতা আমি করছি এর সাথে প্রেম, পিরিতি বা অন্য কোন গোপনীয় আকাঙ্ক্ষা নেই একেবারেই। এর সাথে সম্পর্ক হল স্বাধীনতার। আমার নিজের সীমারেখা সম্পর্কে আমি এতো বেশি সচেতন যে, অতিরিক্ত সামাজিক কোন নিষেধাজ্ঞার দরকার নেই আদতে। আর তার থেকেও মজার ঘটনা হল, আমার শুনশান নিরব বাসায় একান্ত গোপনে সময় কাটাতে আসার জন্য আমার কোন মেয়ে বন্ধুই নেই। এবং কোলকাতায়ও ছিলো না। এবং আমার কলেজ লাইফেও ছিলো না। এবং কেউ কখনওই আসেনি। প্রমাণ দিতে পারলে কানধরে ফেবুতে সেল্ফি আপলোড দেবো তার সম্মানে। তবুও আমি এই ট্যাবুটা ভাঙতে চেয়েছি।

ব্যাচেলর মানেই সেক্স ফ্রিক বা কামুক নয়। ছেলে-মেয়ের সম্পর্ক কেবল শারীরিক হয় না। ঢের বেশি মানুষিক হয়। কেন তবে কোন ছেলের বাসায় কোন মেয়ে আসতে পারবে না? এতো বেশি অবিশ্বাস কেন ব্যাচেলরদের প্রতি? মানুষ নিজে তার নিজের নিয়ন্ত্রক। তাকে তার স্পেসটুকু দেওয়া উচিৎ। আমরা অবিশ্বাসের সমাজ গড়ে তুলেছি। অবিশ্বাস এতো গভিরে গিয়ে ঢুকেছে যে, ব্যাচেলর মানেই আমরা ভাবি সেক্স টয়, স্কট বয় বা ইভ টিজার। ব্যাপারটা অদ্ভুত নয় কী??

ট্যাবুটা ভাঙ্গা উচিৎ। সাহস করে সমাজের মুখোমুখি হোন। যদি কেরো সাথে শুতেই হয়, তবে তাকে সামনের দরোজা দিয়ে ওয়েলকাম জানান। পেছনের দরোজা দিয়ে নয়। আজ থেকে যতবার নতুন বাসা খুঁজতে যাবেন, ততোবার বাড়িওয়ালাকে প্রশ্ন করুণ, “আমার বাসায় মেয়ে আসলে আপনার সমস্যা নেই নিশ্চয়?” আমরা যতদিন প্রশ্ন না করব ততোদিন বাড়িওয়ালাদের কান পাকবে না। বাসায় বিপরীত লিঙ্গের কেউ আসার মাঝে জাত, ধর্ম, রাষ্ট্র, সমাজের কোন সম্পর্ক নেই। কোন পাপও নেই।

বাই দ্য ওয়ে, বাসা পেয়েছি। বাসা পেতে যারা সাহায্য করেছেন এবং যারা করেন নাই, সবাইকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ। ও হ্যা, মেয়ে বন্ধু আসাতে কোনই সমস্যা নেই কিন্তু…..

আনন্দ কুটুম
এক্টিভিস্ট

Write A Comment

error: Content is protected !!