ইনসেনসিটিভি – এনিহয়্যার টু এভরিহয়্যার : তানবীরা তালুকদার

0

পারিবারিক পরিবেশে সবার সাথে বসে হাসিখুশি গল্প করছেন, এরমধ্যে কোন একজন প্রিয় আপা, কিংবা খালাম্মা, কিংবা খুব কাছের কেউ খুব আন্তরিক গলায় বলে বসবে আপনার সন্তানকে কিংবা সন্তানসম কাউকে, মেয়েটার গায়ের রঙটা অনেক ময়লা হয়েছে, না? এখানেই থামবে না, হয়ত আপনার কাছেই কিংবা আপনার আরও কাছের কাউকে বার বার জিজ্ঞেস করবে, শিউর হতে চাইবে, তিনি ঠিক ডিটেক্ট করেছে কি না, হ্যাঁ, ময়লা হয়েছে না?হ্যাঁ, ময়লা হয়েছে না? থামবে না, বলতেই থাকবে, অনেক ময়লা তো, গায়ের রঙ অনেক ময়লা।

যে কিশোরীটিকে নিয়ে কথা হচ্ছে, সে গায়ের রঙের ময়লা-পরিস্কার কি বস্তু সেসব এখনও বোঝে না। ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে বাংলা শব্দ গুলোকে এক সাথে জড়ো করে এর অর্থ উদ্ধার করার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যায়। তবে আশার কথা এই যে, আজকালের বাচ্চারা, পড়াশোনা, নাচে-গানে নিজেকে অনেকভাবে প্রমাণ করতে থাকে বলে, এদের আত্মবিশ্বাস ভাল, এসব কথায় আর যাই হোক মুখ কালো করলেও, আহত হলেও একেবারে ভেঙে পরে না।

বোনেরা বোনেরা একসাথে হেসে, গল্পে, আনন্দে গড়িয়ে পড়ছে। সেখানে একজন খুব কাছের আত্মীয়া উপস্থিত হয়ে, ফটাস করে বলে বসবে, ছোটটা বেশি সুন্দর, বড়টা ছোটটার কাছে কিছুই না। কিংবা উলটোটা। নিজের এই এক্সপার্ট অপিনিয়ন দিয়ে নিজেই গর্বে দশ হাত ফুলে যাবে। অন্যদের মধ্যে কি ক্রিয়া প্রতিক্রিয়া হলো তাতে তার থোড়াই কিছু আসে যায়।

কারো সাথে দেখা হলে আপনি আনন্দে চনমন করে জড়িয়ে ধরতে যাবেন, আপনাকে ফট করে শুনতে হবে, এত মোটা হয়েছিস তুই? কিংবা চেহারাটা এত নষ্ট কেমন করে হলো? এজ ইফ মোটা হয়েছেন না শুকিয়েছেন, সৌন্দর্য নষ্ট হয়েছে না হয় নি এই ইনফরমেশানগুলো আপনার অজানা, তার কাছ থেকেই জানতে হবে।

ইউরোপীয়ান কাউকে বলবেন, উফ, প্রচন্ড গরম পরেছে, সে অবলীলায় জবাব দেবে, চল্লিশ ডিগ্রীর মাঝ থেকে এসে এখানে গরম লাগে? এমন লুক দেবে যে আপনার অপরাধ হয়ে গেছে। থেমে যেতে হয়। বলা যায় না, ক্ষিধা লাগছে, তাহলে হয়ত বলে বসবে, ভিখ মাংগার দেশ থেকে এসে এখানে আবার ক্ষিদাও লাগে।

কিছু বলার আগে মানুষ কবে ভাববে যে অন্য মানুষটার কেমন লাগবে? নিজেকে ঐ জায়গায় রেখে ভাবলে হয়ত কথা গুলো খানিকটা হলেও বদলে যেতো।

তানবীরা তালুকদার
লেখক , ব্লগার

Leave A Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!